শ্বেতির সাদা দাগ দূর করার উপায়।

                           ইংরেজী 'ভিটিলিগো' ' শব্দের বাংলা অর্থ হল শ্বেতি। শ্বেত বলতে সাদা বোঝায়।এই শ্বেত শব্দ থেকে উৎপত্তি হয়েছে শ্বেতি শব্দটি।বর্তমান কালে শ্বেতি রোগে আক্রান্ত মানুষদের আমরা দেখে থাকি।হাত,পা,মুখ সহ শরীরের যেকোন জায়গায় সাদা সাদা দাগ দেখা যায়-একেই শ্বেতি বলে।                                                            তবে শরীরের অন্যান্য চর্মরোগেও সাদা দাগ দেখা যায়।তবে চিনবেন কি করে কোনটা শ্বেতি?শ্বেতি হলে কিছু লক্ষণ প্রকাশ পায়।যেমন-প্রথমদিকে হালকা সাদা ছোপ দেখা যায়।ধীরে ধীরে তা ধবধবে সাদা হয়ে যায়।                                                                           শ্বেতি দেহে সংখ্যায় এক বা একাধিক হতে পারে।সাদা চামড়ার তুলনায় কালো চামড়ায় শ্বেতি প্রকট ভাবে প্রকাশ পায়।রোদে এলে শ্বেতি আক্রান্ত জায়গা লালও হতে পারে।চুলে শ্বেতি হলে চুল সাদা হয়ে যায়।ব্যাপারটি ভালোভাবে বোঝার জন্য শ্বেতি        আক্রান্ত একটি মানুষের ছবি দেওয়া হল---   
 আমাদের ত্বকে থাকে মেলানিন,যা আমাদের ত্বকের সঠিক রঙ নির্ধারণ করে।শ্বেতি রোগে ত্বকের মেলানিন নষ্ট হয়ে যায়।যার ফলে মানুষ বিব্রত হয়ে ওঠে।যেকোন বয়সের মানুষের হতে পারে।                                                                               যদি সুন্দর কোন চিত্রের উপর একফোঁটা বা কয়েকফোঁটা কালি ফেলে দেওয়া যায় তবে চিত্রটি দেখতে বিশ্রী লাগবে।সেই রকম কোন মানুষের ত্বকের আসল রূপের মাঝে শ্বেতির জন্ম হলে মানুষটিকে দেখতে বিশ্রী রকমের লাগবে।শ্বেতি আক্রান্ত মানুষ সামাজিক ভাবে ঘৃণিত হয়,ফলে সে মানসিক ভাবে বিপর্যস্ত হয়।                                                                              শ্বেতির সাদা দাগ দূর করা কঠিন কাজ।শ্বেতি বংশগত ভাবে থাকলে তাকে সারানো অসম্ভব ব্যাপার হয়ে দাঁড়ায়।যদি হঠাৎ আবির্ভাব হয় তবে সেরে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে।শ্বেতি হলে দেরি না করে প্রথম থেকেই ডাক্তারের পরামর্শ নিন।                                           বাড়িতে বসে ঘরোয়া চিকিৎসার মাধ্যমেও কিন্তু শ্বেতি রোগকে রোধ করা যায়,তা আমাদের অনেকেরই অজানা।হাতের কাছে থাকা সামান্য সাদামাটা জিনিস দিয়ে কিভাবে শ্বেতিকে নির্মূল করা যায় তার কিছু টিপস্ জেনে রাখা ভালো।তা আলোচনা করা হল----                                                 1)আদা:-                                                                              আদা রক্ত সংবহনের গতি বাড়াতে সাহায্য করে।আদা ত্বকের মেলানিন ক্ষরণেও সাহায্য করে।তাই শরীরের যে জায়গায় শ্বেতির আবির্ভাব হয়েছে সে জায়গায় আদা কেটে ঘষলে বা আদার রস লাগালে উপকার পাবেন।                                                        2)নিম:-                                                                               আমাদের অতি পরিচিত নিম গাছের গুরুত্ব অপরিসীম।নিমের রস রক্তকে পরিস্রুত করে,চর্মরোগ বিনাশ করে।তাই নিমপাতাকে থেঁতলে শ্বেতির উপর লাগালে বিশেষ উপকার পাওয়া যায়।নিমপাতা থেঁতলে তার রস বের করে খেলেও উপকার পাওয়া যায়।          3)নারকেল তেল:-                                                                            নারকেল তেল ত্বকের নানা সমস্যা দূরীভূত করে।ত্বকের সাদা দাগ দূরীকরনে অপরিহার্য উপাদান এটি।ত্বককে ব্যাকটেরিয়া ও ছত্রাক সংক্রমণের হাত থেকে বাঁচায়।ত্বকে অবস্থিত মেলানিন নষ্ট হয়ে গেলে সেই জায়গায় নতুন করে মেলানিন গঠন করে ত্বককে স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে সাহায্য করে নারকেল তেল।                                                  4)লাল মাটি:-                                                                            লাল মাটিতে তামার ভাগ অনেক থাকে।লাল মাটির সঙ্গে আদার রস মিশিয়ে আক্রান্ত জায়গায় নিয়মিত লাগালে উপকার পাওয়া যায়।                      5)তামা:-                                                                             তামা ত্বকে মেলানিন উৎপন্ন করে।তাই একটি তামার পাত্রে রাখা জল নিয়মিত পান করলে শ্বেতি সমস্যা দূরীভূত হবে।                                                                                                             

No comments

Theme images by -ASI-. Powered by Blogger.